in

যেভাবে নিরাপদে গাড়ি চালাবেন


শখের গাড়ি কেনার পর শিখে ফেললেন গাড়ি চালানো। এখন সময় হলো গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বের হওয়ার। কিন্তু, এর আগে কিছু বিষয় সম্পর্কে আপনার ভালো করে জানতে হবে। কেননা, একটু ভুল হলে ঘটে যেতে পারে মারাত্নক দূর্ঘটনা। তাই, কীভাবে নিরাপদে গাড়ি চালাবেন তা সম্পর্কে ধারণা দিতে আজকের এই লেখা।

নিরাপদে গাড়ি চালানো

নিরাপদে গাড়ি চালানোর জন্য আপনাকে যেসব কাজ করতে হবে তা হলো:

১. যাত্রার আগে থেকেই পরিকল্পনা করুন

গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে পড়ার আগেই আপনার ভ্রমণে কোথায় ও কখন খাবেন, বিশ্রাম নিবেন বা মোবাইলে কথা বলবেন সেটি পরিকল্পনা করে রাখুন। হুট করেই কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে গাড়ি থামিয়ে ফেলবেন না।

যাত্রার আগে গাড়ি পরীক্ষা করে নিন; source: Wkbn

২. যাত্রার আগেই গন্তব্যের রাস্তা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন

আপনার গন্তব্যের রাস্তা সম্পর্কে বিস্তারিত জানা নিরাপদ ড্রাইভিং এর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়ার আগেই যে রাস্তা দিয়ে যাবেন তা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা রাখুন। তা না হলে, অপরিচিত রাস্তায় গাড়ি চালাতে গিয়ে আপনি নানা সমস্যার সম্মুখীন হবেন। এক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো আপনাকে অবশ্যই খেয়াল করতে হবে তা হলো:

  • রাস্তায় গাড়ির পরিমাণ
  • রাস্তার লেনের পরিমাণ
  • রাস্তার গঠনগত অবস্থা
  • রাস্তার প্রশস্ততা

৩. বিভিন্ন যন্ত্রাংশ ঠিক আছে কিনা পরীক্ষা করে নিন

গাড়ি চালানোর আগে গাড়ির বিভিন্ন যন্ত্রাংশ ঠিক আছে কি না পরীক্ষা করে নেয়া। যেমনঃ গাড়ির হ্যান্ড ব্রেক ঠিক মতো কাজ করছে কি না, রেডিয়েটরে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি আছে কি না, হর্ন ঠিকমত বাজে কি না, গাড়ীর চাকায় হাওয়া আছে কি না ইত্যাদি পরীক্ষা করে নিন। এছাড়াও এক্সিলেটর প্যাডেল, ব্রেক প্যাডেল, স্টিয়ারিং হুইল, ওয়াইপার সুইচ ঠিক আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখুন।

গাড়ির ভেতরের কথায় মনোযোগ দিবেন না; source: Curtis Legal

৮. খারাপ আবহাওয়ায় সতর্ক থাকুন

আবহাওয়া খারাপ থাকলে, যেমন বৃষ্টি, ঝড়, কুয়াশা ইত্যাদি থাকলে গাড়ি চালানোর সময় বেশি সতর্ক থাকা উচিত। এই সময় গাড়ির হেড লাইট জ্বালিয়ে রাখা উচিত। যা দুর্ঘটনা ঘটার হাত থেকে বাঁচতে সাহায্য করবে। যদি গাড়ির অবস্থা খারাপ থাকে তাহলে স্বাভাবিক গতি থেকেও আস্তে আস্তে গাড়ি চালাবেন।

৯. অন্য ড্রাইভারদের ব্যাপারে সতর্ক থাকুন

গাড়ি চালানোর সময় এটা মাথায় রাখা উচিত যে, অন্য ড্রাইভাররা আপনার মতো নিয়মতান্ত্রিক নাও হতে পারে। তাই সব সময় চারপাশের অবস্থা সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে। ট্রাফিক সিগন্যাল, গাড়ির সঠিক লেন ইত্যাদি মেনে গাড়ি চালানো উচিত। আর একটু সতর্ক থাকলেই আপনি যে কোন বড় দুর্ঘটনা এড়িয়ে যেতে পারবেন।

১০. ইনডিকেটর ব্যবহার করুন

গাড়ি টার্ন করার সময় ইনডিকেটর ব্যবহার করুন। এতে অন্য গাড়ির ড্রাইভার বুঝতে পারবে আপনি কী করতে চাচ্ছেন। এছাড়াও ড্রাইভিং মিরর ঠিক করে নেয়া যাতে পিছনের গাড়ি এবং রাস্তা ঠিক মত দেখতে পাওয়া যায়।

১১. ফুয়েলের পরিমাণ পরীক্ষা করে নিন

ভ্রমণের সময় যাতে হঠাৎ করে ফুয়েল শেষ হয়ে গাড়ি বন্ধ না হয়ে যায়, সেজন্য গাড়ি চালানোর আগে পরীক্ষা করে নিন গাড়িতে কতটুকু ফুয়েল আছে। প্রহরী ভেইকেল ট্র্যাকারের ফুয়েল মনিটরিং ফিচারের মাধ্যমে জেনে নিন কতটুকু ফুয়েল খরচ হয়েছে এবং কতটুকু অবশিষ্ট আছে।

গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ব্যবহার করবেন না; source: WVNS

নিরাপত্তার জন্য আরো যা যা করবেন

• আপনার পাশের কার্গো বা অন্য গাড়ি এদিক ওদিক করলে কী পরিমান জায়গা নিতে পারে সেই দুরত্ব মেনে চলে গাড়ি চালান।
• গাড়ির মধ্যে কোনো জিনিষ পড়ে গেলে গতিতে থাকা অবস্থায় সেটি তুলতে যাবেন না।
• গাড়ি চালনার সময় প্রয়োজনীয় জিনিষ যেমন টোল ফি, টোল কার্ড, লাইসেন্স ইত্যাদি সহজেই পাওয়া যায় এমন জায়গায় রাখুন।

উপরের নিয়মগুলো মেনে চললে আপনি অনাকাঙ্খিত দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাবেন। তাই দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাবার জন্য উপরের নির্দেশনাগুলো মেনে চলুন।

Feature Image Source: Fox 13

\

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *