in

কিভাবে ভালোবাসার সম্পর্ক সুন্দর করে তোলা যায়?

প্রিয় মানুষটাকে হাসিখুশি দেখতে কত কিছুই করে থাকেন। প্রেমের আবেগে কেউ কেউ ক্ষনিকের জন্য কবি বনে যান! ‘তোমারেই যেন ভালোবাসিয়াছি, শত রূপে শত বার। জনমে জনমে, যুগে যুগে অনিবার।’ রবি ঠাকুরের ‘অন্তত প্রেম’ কবিতার মতো অনেকেই তার প্রেমিক বা প্রেমিকার জন্য শত পাতার কবিতা রচনা করেন। সম্পর্ককে মধুর করে রাখতে কত কিছুই না করেন প্রেমিকযুগল।

কিন্তু অনেক রোমান্টিক সম্পর্কেও ফাটল দেখা দিতে পারে ঠুনকো কোনো কথায় বা কাজে। এমনকি বিষয়টি বিচ্ছেদে গড়াতে পারে। ভালোবাসায় শ্রদ্ধা ও সম্মান থাকা উচিত। তাই এমন কিছু করা উচিত নয় যা আপনার ফুলের মতো ভালোবাসায় উটকো কীটের মতো বাসা বাঁধে। এই ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে না চাইলে জেনে নিন কিছু বিষয় যা আপনাকে সম্পর্ক ভালো রাখতে সাহায্য করবে অনেখ খানি-

Image result for caring husband

১) একে অপরের প্রতি যত্নশীল হউনঃ ভালোবাসার অর্থ একে অন্যের প্রতি যত্নশীল হওয়া। বিষয়টি বেশ সাধারণ। পেশাজীবনে আমরা বেশিরভাগ সময় অফিসে থাকি। কিন্তু দূরে থাকলেও প্রেমিক বা প্রেমিকার একটু খোঁজ-খবর নিলেই যত্নশীলতার বিষয়টি প্রকাশ পায়। কিন্তু আপনি যদি দীর্ঘসময় তার খোঁজ না রাখেন বা যত্নশীল না হন- তাহলে আপনার সম্পর্কে ভাটা পড়বে। তাই যথাসম্ভব একে অপরের প্রতি যত্নশীল হোন।

Image result for breakup couple

২) বিশ্বাস ভাঙবেন নাঃ সম্মান ও শ্রদ্ধা ছাড়াও পারস্পরিক বিশ্বাসের মাধ্যমে ভালোবাসা গড়ে ওঠে। আপনি যদি আপনার প্রেমিক বা প্রেমিকাকে বিশ্বাস করতে না পারেন, তাহলে বিষয়টি নিয়ে আরো গভীরভাবে ভেবে দেখতে পারেন। গভীর সম্পর্কে যাওয়ার আগে সেটার ইতি টানাও সেক্ষেত্রে ভালো হতে পারে। সম্পর্ক হবে পরিপূর্ণভাবে খোলামেলা, বিশ্বাসযোগ্য ও সহযোগিতামূলক। পরস্পরের মধ্যে বিশ্বাসের অভাব থাকলে সুসম্পর্ক নষ্ট হবে। বিশ্বাসের অভাব থাকলে বিষয়টিকে অকারণে টেনে নেওয়া বা প্রশ্রয় দেওয়া উচিত নয়।

Related image

৩) অনুভূতির অস্তিত্ব রাখুনঃ কোনভাবেই প্রেমিক কিংবা প্রেমিকার প্রতি আবেগ-অনুভূতির ঘাটতি থাকা কাম্য নয়। আবেগের অভাব থাকলে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা কষ্টকর হয়ে যাবে। আপনি যদি ভালোবাসার মানুষটির প্রতি সহানুভূতি বোধ না করেন, তাহলে মনে রাখবেন আপনার ভালোবাসায় ঘাটতি রয়েছে। বিষয়টি অনিবার্যভাবে সম্পর্কে ফাটল ধরাবে। তাই সম্পর্ক ভালো রাখতে অবশ্যই আবেগের অস্তিত্ব থাকা উচিত।

Image result for responsible husband

৪) দায়িত্বশীল হোনঃ  সম্পর্কের প্রতি দায়িত্ববান হওয়াটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। জীবন-সংসার চালাতে হলে কাজ করতে হবে এটি সত্যি। কিন্তু কেউ যদি পরিপার পরিজন সব ভুলে শুধু কাজ কিংবা ব্যবসায় বিমুখ হয়, তাহলে অবশ্যই বিষয়টি শুভ লক্ষণ নয়। তাকে স্পষ্টভাবে বলে দেওয়া উচিত- কর্মবিমুখ মানুষের মধ্যে ভালোবাসা থাকলেও তা সফল হতে পারে না।

Image result for give her importance

৫) মর্যাদা দিনঃ আপনি জানেন কি? সম্পর্কের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে অন্যদের চেয়ে ভালোবাসার মানুষটিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া? হ্যাঁ! এটাই সত্যি। তবে এ ক্ষেত্রে কেউ যদি নিজেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন, তাহলে সম্পর্ক যে বাজে দিকে গড়াবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। ভালোবাসা গড়ে ওঠে সমানে সমানে। এটা মনে রাখা অত্যন্ত জরুরি।

\

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *